ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪


সাভারে চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত, ৪০কর্মকর্তা-কর্মচারী আইসোলেশনে

সাভারে চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত, ৪০কর্মকর্তা-কর্মচারী আইসোলেশনে

স্টাফ রিপোর্টার : সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ ৪০জন আইসোলেশনে রয়েছে।

সোমবার দিবাগত গভীর রাত আনুমানিক ১টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মো: সায়েমুল হুদা তার ফেইসবুক পেজে এক স্ট্যাটাসে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তিনি স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেছেন, আজ (সোমবার) চিকিৎসক সহ ১০ জনের নমুনা পাঠিয়েছিলাম তারমধ্যে ০৯ জন নেগেটিভ আর ০১ জন চিকিৎসক পজেটিভ। কি ভাগ্য আমাদের!!!

“আমি আমার যোদ্ধাদের মনোবল দেখে বিস্মিত তাকে বললাম আপনাকে তো কুর্মিটোলা হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে। তিনি তখনও জরুরি বিভাগে দায়িত্ব পালন করছিলেন। তিনি বললেন স্যার আমি এখন চলে গেলে ইমারজেন্সি ডিউটি কে করবে, কি হবে রোগী যদি আসে? চুপ হয়ে গেলাম ইচ্ছে করছিল অনেক আওয়াজ করে ছোট শিশুদের মত কান্না করতে কিন্তু পারিনি কিছুক্ষণ চুপ থেকে বললাম আমি করব ইমারজেন্সি ডিউটি। আপনি চিন্তা করবেন না, আমার সিভিল সার্জন স্যার সাহস দিলেন। আমার যোদ্ধা এখন ভর্তি আছে।”

“আমাকে বলে স্যার আপনি আইসোলেশনে চলে যান, কারন আজ সারাক্ষণ আমরা একসাথে ছিলাম। একসাথে প্রশিক্ষণ প্রদান করেছিলাম। আজ আমি চলে আসলাম আইসোলেশনে। আমিসহ আমার ৪০ জন কর্মকর্তা ও কর্মচারী আইসোলেশন বাধ্যতামূলক হয়ে পরেছে।”

বলেছি, সহকর্মীদের যদি বাঁচতে হয় একসাথে লড়ে বীরের মত বাঁচব আর মরতে হলেও বীরের মত মরব।

এত মানুষ আমাদের ভালবাসে, নিশ্চয়ই মহান সৃষ্টিকর্তা আমাদের দেখে রাখবেন। আমাদের সেবা কার্যক্রম যথারিতি চলবে। যদি আমি ও আমার টিম বেঁচে থাকি দেখা হবে নিশ্চয়ই।

এপ্রসঙ্গে আরো জানতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মো: সায়েমুল হুদার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

সাভার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ জানান, গত কয়েক দিন ধরে ওই চিকিৎসকসহ কয়েকজনের মধ্যে করোনার উপসর্গ থাকায় পরীক্ষার জন্য নমুনা মহাখালীর জনস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে (আইপিএইচ) পাঠানো হলে রাতে জানানো হয় ওই চিকিৎসকের করোনা পজেটিভ। এরপরই তাকে কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এই চিকিৎসক সারা দিন রোগীদের চিকিৎসা দিয়েছেন জানিয়ে তিনি আরো জানান, ওই চিকিৎসক রাজধানীর শ্যামলীতে থাকতেন। সেখান থেকেই সাভার হাসপাতালে এসে দায়িত্ব পালন করতেন। এই ঘটনার পরবর্তী সিদ্ধান্ত সিভিল সার্জন ও জেলা প্রশাসক নিবে বলেন তিনি।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *