এপ্রিল ২৫, ২০২৪


‘১৭ জেলায় বন্যায় ক্ষতির মুখে সাড়ে ১৪ লাখ মানুষ’

‘১৭ জেলায় বন্যায় ক্ষতির মুখে সাড়ে ১৪ লাখ মানুষ’

অনলাইন ডেস্কঃ চপাহাড়ি ঢল ও বর্ষণের কারণে বর্তমানে দেশের ১৭টি জেলা বন্যাকবলিত হয়েছে। এতে দেশের ১৭ জেলার সাড়ে ১৪ লাখ মানুষ ক্ষতির মুখে পড়েছে। আর পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে আরও প্রায় তিন লাখ মানুষ।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা: মো. এনামুর রহমান। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ইতোমধ্যে ১৭টি জেলা বন্যাকবলিত হয়েছে। জেলাগুলো হচ্ছে-রংপুর, নীলফামারী, লালমনিরহাট, মানিকগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, সিলেট, বগুড়া, মাদারীপুর, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, কুড়িগ্রাম, জামালপুর, গাইবান্ধা, ফরিদপুর, রাজবাড়ি, মুন্সিগঞ্জ ও নেত্রকোনা। এই জেলাগুলোর মোট বন্যা আক্রান্ত ইউনিয়নের সংখ্যা ৪৬৪টি। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত লোকসংখ্যা ১৪ লাখ ৫৭ হাজার ৮২৯ জন এবং মোট পানিবন্দি পরিবারের সংখ্যা ২ লাখ ৯৪ হাজার।’

প্রতিমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী বন্যা ২৩ জেলায় বিস্তৃতি লাভ করবে এবং তা আগস্টের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত থাকবে।

বন্যাদুর্গতদের জন্য সরকারের পর্যাপ্ত ত্রাণসামগ্রী প্রস্তুত রয়েছে জানিয়ে এনামুর রহমান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা লোকজনের জন্য রুটিসহ রান্না করা খাবার পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এসব জেলায় নতুন করে আরও ৬০ লাখ টাকা ছাড় করা হয়েছে। এ অর্থ দিয়ে রান্না করা খাবার ও রুটি তৈরি করে বন্যার্তদের মানুষের মধ্যে বিতরণ করতে বলা হয়েছে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা প্রত্যেক জেলায় সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করেছি। মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর ও প্রত্যেক জেলায় মনিটরিং সেল খোলা হয়েছে। আমরা মনিটরিং করছি।’

এ সময় বন্যা পূর্বাভাস কেন্দ্রের তথ্য দিয়ে প্রতিমন্ত্রী জানান, ব্রক্ষ্মপুত্র-যমুনা এবং গঙ্গা-পদ্মা নদ-নদীর পানির সমতল বাড়ছে, যা আগামী ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি আরিচা পয়েন্টে বিপৎসীমা অতিক্রম করবে।

অপরদিকে, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, দিনাজপুর, বগুড়া, জামালপুর, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, নাটোর, নওগাঁ, মুন্সিগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ী ও ঢাকা জেলার নিম্নাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *