এপ্রিল ২৫, ২০২৪


রূপগঞ্জে কারখানার ৫১ শ্রমিক নিখোঁজ

রূপগঞ্জে কারখানার ৫১ শ্রমিক নিখোঁজ

অনলাইন ডেস্ক: রূপগঞ্জে হাসেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজ কারখানায় আগুনের ঘটনায় ৫১ শ্রমিক এখনো নিখোঁজ রয়েছেন বলে পরিবারগুলোর দাবি।
তবে পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম বলছেন, যাদের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে তারাই নিখোঁজ বলে হয়তো তাদের পরিবার বলছে। ডিএনএ টেস্টের পরে লাশ শনাক্ত হলে বুঝা যাবে কেউ নিখোঁজ আছেন কিনা।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ও রূপগঞ্জে প্রতিষ্ঠানের গেটের সামনে নিখোঁজদের আত্মীয়-স্বজন ভীড় জমাচ্ছেন। অনেকের হাতে নিখোঁজদের ছবি, ভোটার আইডি কার্ড, ফ্যাক্টরিতে চাকরি করার প্রমাণপত্র।

আত্মীয়দের দেয়া তথ্যানুযায়ী নিখোঁজ শ্রমিকরা হলেন, ভোলার চর ফ্যাশন উপজেলার গোলামের ছেলে মো. মহিউদ্দিন, একই উপজেলার ফখরুল ইসলামের ছেলে শামীম, ভোলা জেলার ইসমাইলের মেয়ে হাফেজা, নারায়ণগঞ্জের হাকিম আলীর মেয়ে ফিরোজা বেগম, কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার তাহের উদ্দিনের ছেলে নাঈম, একই জেলার নিতাই উপজেলার স্বপনের মেয়ে শাহিদা, মৌলভীবাজারের পরবা বর্মনের ছেলে কমপা বর্মন, ভোলার তাজুদ্দিনের ছেলে রাকিব, কিশোরগঞ্জের কাইয়ুমের মেয়ে খাদিজা, নেত্রকোনার জাকির হোসেনের মেয়ে শান্তা মনি, হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার সেলিমের স্ত্রী উর্মিতা বেগম, কিশোরগঞ্জের কাইয়ুমের মেয়ে আকিমা, নেত্রকোনার কবির হোসেনের মেয়ে হিমা, রংপুরের মানসের ছেলে স্বপন, কিশোরগঞ্জের মাহাতাব উদ্দিনের স্ত্রী শাহানা, একই জেলার গোলাকাইন্দাইল খালপাড়ের রাজিবের স্ত্রী আমেনা, কিশোরগঞ্জের আব্দুর রশিদের মেয়ে মিনা খাতুন, পাবনার হাঠখালির শাহাদত খানের ছেলে মোহাম্মদ আলী, ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার ফজলুর ছেলে হাসনাইন, জামালপুরের মো. শওকতের ছেলে জিহাদ রানা, কিশোরগঞ্জের মো. সেলিমের মেয়ে সেলিনা, নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার ফিরোজা, তার মেয়ে সুমাইয়া, নরসিংদীর শিবপুরের জসিম উদ্দীনের স্ত্রী রিমা, কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার সুজনের মেয়ে রিনা আক্তার, চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলার হাছান উল্লাহর ছেলে পারভেজ, পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলার গোকুলের ছেলে মাহাবুব, গাজীপুরের সেলিম মিয়ার ছেলে রিপন মিয়া (ইয়াসিন), ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার মান্নান মাতাবরের ছেলে নোমান মিয়া, দোলাকান্দাইল উপজেলার আফজালের স্ত্রী নাজমা বেগম, নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার আবল কাশেমের ছেলে রাসেদ, নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার এনায়েতের ছেলে বাদশা, ভোলা জেলার চরফ্যাশন উপজেলার ইউসুফ, নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলার আবুল বাসারের ছেলে জিহাদ, শাকিল, কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জের খোকনের স্ত্রী জাহানারা, গাইবান্ধার প্রফেসর কলনির হাসানুজ্জামানের মেয়ে নুসরাত জাহান টুকটুকি, কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি থানার চান্দু মিয়ার মেয়ে রাবেয়া, কিশোরগঞ্জের মালেকের মেয়ে মাহমুদা, নেত্রকোনার খালিয়াঝুড়ি উপজেলার আজমত আলীর মেয়ে তাকিয়া আক্তার, হবিগঞ্জের আব্দুল মান্নানের মেয়ে তুলি, কিশোরগঞ্জের নিজামউদ্দিনের মেয়ে শাহানা, দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার ফয়জুল ইসলামের ছেলে সাজ্জাদ হোসেন সজীব, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ থানার লালচু মিয়ার মেয়ে লাবণ্য আক্তার।

হাসেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজের সেজান জুস কারখানায় বৃহস্পতিবার আগুন লাগে। এমনিতে কারখানায় ৬-৭ হাজার শ্রমিক থাকলেও করোনার কারণে ঘটনার দিন কারখানার ৬ তলা ভবনটিতে প্রায় ৪০০ কর্মী কাজ করছিলেন। শুক্রবার দুপুরে কারখানার ভেতর থেকে ৪৯ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এর আগে আরো তিন জনের মৃত্যু হয়। সব মিলে ৫২ জন মারা গেছে বলে নিশ্চিত জানা গেছে।

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *